শুক্রবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী, ২০১৪

ভাষা দিবসের সেরা পছন্দ

একুশে ফেব্রুয়ারি

- দেবাশিস লাহা

"
মামি ,তুমি লুক করো ! ইয়েলো ইয়েলো রোজে কেমন ব্লাক ব্লাক বি'জ বসেছে ! "

পাশের বাড়ির জানালা থেকে বাপানের গলা
ভেসে আসতেই আবার আত্মঘাতী হল ছড়ার কাঠবেড়ালিটা !

ঘুমের মধ্যেই আর এক বার ককিয়ে উঠল রাম গরুড়ের ছানা !

"
জানো পিসি আমার ছেলেটা একটুও বাংলা বোঝে না " পলির গলা থেকে সেই পরিচিত সুর ভেসে আসতেই
রাস্তার দিকে ঘুরিয়ে দিলাম চোখ !

সকাল হতে না হতেই হিসু করা শুরু করেছে
যীশুর হরেক রকম চেলা !
সেন্ট পলস, সেন্ট অগাস্টিন, সেন্ট জোসেফ
স্টিকার মারা বাস গিলে নিচ্ছে বাপান ও তার বন্ধুদের !

আর বোতলবন্দী বাংলার মতই ব্রাত্য হয়ে যাচ্ছে রফিকের রক্ত !

এক রাশ মন খারাপ নিয়ে ডান দিকে তাকাতেই গুলিয়ে উঠল গা ! লুঙ্গির মধ্যে ঢুকে যাচ্ছে আস্ত একটা বস্তি !
আওয়াজ উঠেছে "লুঙ্গি ডান্স, লুঙ্গি ডান্স ! লুঙ্গি ডান্স ! "

প্রতিবাদে ফেটে পড়লাম আমি !
লিখে ফেললাম আরও একটা কবিতা !

রফিক, সালাম, বরকতদের রক্ত ঠেলতে ঠেলতে পৌঁছে গেলাম
মঞ্চে ! এই তো জ্বলজ্বল করছে
21
শে ফেব্রুয়ারি !
আহ কি শান্তি ! এবার জড়িয়ে ধরব মাকে !
কিন্তু একি ! হাত বাড়াতেই কেঁপে উঠল শরীর !
ভয়, ভীষণ ভয় পেলাম আমি -
কি জবাব দেব --
বাপানও যদি পাল্টা প্রশ্ন করে ওইদিন বাংলা তারিখটা কত ছিল ?


ভাষার গান

- সুবীর কাস্মীর পেরেরা

সেদিনও গায়ে হালকা জ্বর ছিলো;
ইচ্ছে ছিলো মিঠা রোদের আদর নিবো গায়ে,
সাথে মতি মিয়ার দোকানের এক কাপ গরম চা
প্রতিদিন যা হয়

সকালে ঘুম না ভাংতেই কেউ একজন
দরজার কড়া নেড়ে আমায় ডেকে নিয়ে
সোজা চিরচেনা ঢাকা মেডিক্যালের খালি রাস্তায়!
আমি হতবাক হয়ে গেলাম!
কে নেই এখানে? কি নেই এখানে?
আছে মানুষ, আছে ভালোবাসা, আছে শ্লোগান,
ভাষার জন্য শ্লোগান, মায়ের জন্য শ্লোগান
বেঁচে থাকা সংগ্রামের শ্লোগান

আমার গায়ে গরমের মাত্রাটা আরো বেড়ে যায়,
ঘামে ভেজা শার্টে লেপ্টে থাকা শরীর
জয়ের নিশানার স্রোত

আমি এবং আমরা চলেছি,
কোন বাঁধাকে উপেক্ষা করে আমাদের চলা,
জয়ের মশাল যখন আমাদের হাতে,
আমি তাকিয়ে দেখি আমার শার্টে
লাল লাল বর্ণে লেখা,
'
আ মরি বাংলা ভাষা'

০১/২৯/২০১৪



প্রিয় বর্ণমালা

- আমি নোভা

ম্যাগ্নিফাইং গ্লাস দিয়ে তির্যক আলো ফেলে আমি কাগজটি পুড়াচ্ছিলাম।
আমার ভাবভঙ্গী ও আয়োজন দেখে একজন প্রশ্ন করলো-
তুমিতো ভয়ংকর মানুষ হে - মাছি মারতে কামান দাগছ ?
দেয়াশলাইয়ের একটা কাঠির ঘর্ষণেই তুমি এইকাজ করতে পারতে?

পারতাম । তাতে আমার মনের যন্ত্রণা একটুও লাঘব হতোনা।
আমাকে যখন কেউ কোন ওজুহাত ছাড়াই
ইংরেজি বর্ণমালা দিয়ে অদ্ভুত বাংলায় কিছু লিখবে
তখনি আমি বাঁকা পথে তার প্রতিশোধ নেবো;
সে যেই হোক না কেন - প্রিয়তম কাঙ্ক্ষিত বা কেউ।

অনেক দামে কেনা প্রিয় ভাষার প্রতি
প্রিয় স্বরবর্ণ ও ব্যাঞ্জনবর্ণের প্রতি - এই আমার সস্রদ্ধ সম্মান।
  

বাংলা আমার রক্তে লেখা প্রিয় বর্ণমালা

- হাসান ইমতি

বাংলা আমার মাঠভরা ফসলের সোনামুখী সুখ
বাংলা আমার পল্লীমায়ের গোলাভরা হাসিমুখ,
বাংলা আমার মায়ের অবিচল আস্থার আঁচল
বাংলা আমার বাঁচিয়ে রাখা অনন্ত আশার স্থল,
বাংলা আমার বাবার কাছে অ আ ক খ শেখা
বাংলা আমার চোখ খুলে প্রথম আকাশ দেখা,
বাংলা আমার হার না মানা সংগ্রামী বালুবেলা
বাংলা আমার মা, মাটি ও মানুষের মিলনমেলা,
বাংলা আমার অনেক সুখ ও স্বপ্নের চারণভূমি
বাংলা আমার ভালোবাসায় ঘেরা প্রিয় জন্মভুমি,
বাংলা আমার নিঃশর্ত আত্মসমর্পণের সরলতা,
বাংলা আমার সব বিভেদ ভুলে পাওয়া একতা
বাংলা আমার মায়ের মুখে শোনা প্রথম ভাষা
বাংলা আমার কচি মনে দাগকাটা ভালোবাসা,
বাংলা আমার একুশের উদ্দীপ্ত চেতনায় পথচলা
বাংলা আমার সংগ্রামী রক্তে লেখা প্রিয় বর্ণমালা,
বাংলা আমার হার না মানা ভালোবাসা নির্বিরোধ
বাংলা আমার ভাষার চেতনায় একীভূত বিশ্ববোধ


একুশের মানে !

- শিল্পী রহমান

একুশ মানে রাত্রি শেষে সকাল হতে দেখা
একুশ মানে বোনের হাত ধরে প্রভাত ফেরী যাওয়া
একুশ মানে নগ্ন পায়ে অনেকটা পথ হাঁটা
একুশ মানে কৃষ্ণচুড়ায় পথ ঘাট ছেয়ে যাওয়া
একুশ মানে ফুল দিয়ে শহীদ মিনার ঢাকা
একুশ মানে পেছন ফিরে ইতিহাসটা জানা
একুশ মানে নতুন করে ভাষা সৈনিক চেনা
একুশ মানে হৃদয় দিয়ে তাঁদের স্মরণ করা
একুশ মানে বুকের ভেতর বাঙলাকে গেঁথে নেয়া
একুশ মানে গর্ব ভরে বাঙলায় কথা বলা
একুশ মানে পরান ভরে বাংলায় গান গাওয়া
একুশ মানে মাথা উঁচু করে একুশের কথা বলা
একুশ মানে বাঙালি হয়ে বাঁচার সাধ বোঝা
একুশ মানে পৃথিবীর বুকে বাঙলাকে তুলে ধরা

1 টি মন্তব্য:

  1. "ভাষা দিবসের সেরা পছন্দ" বিভাগে যেসব বন্ধুদের লেখা স্থান পেল তাদের জানাই আন্তরিক অভিনন্দন । একুশের উপর বন্ধুদের লেখা কবিতা থেকে বাছাই করতে গিয়ে আমরা এক মধুর সমস্যায় পড়েছি, একুশের উপর আমরা এতো ভালো লেখা পেয়েছি যে আমাদের ভালোলাগা অনেক লেখাও আমরা সেরা দশে স্থান দিতে পারিনি । দেখা গেছে একই লেখকের একুশের উপর দুটি বা তিনটি লেখাই ভালো হয়েছে । সেরা দশে আমরা কারো একটির বেশী লেখা নেইনি । সেখেত্রে কিছু ভালো লেখা আমরা অন্তর্ভুক্ত করতে পারিনি । তাই আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমাদের লেখনী প্রকাশনা থেকে একুশের উপর বাছাই করা লেখা নিয়ে "একুশ সংকলন" নামে একটি ই বই প্রকাশিত হবে । আপনি যদি একুশের উপর কোন কবিতা লিখে থাকেন যা আগে আমাদের গ্রুপে দেননি । আমাদের এই সংকলনে আপনার সেই লেখা অন্তর্ভুক্ত করতে চাইলে তা ২৮-০২-২০১৪ ইং তারিখের ভেতর আমাদের গ্রুপ বা পেজ ইনবক্সে দিন ।

    উত্তর দিনমুছুন